1. [email protected] : dailybibartan :
  2. [email protected] : Boni Amin : Boni Amin
আজ ১৫ নভেম্বর ভয়াল সিডর দিবস
সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি:
সারাদেশে সংবাদকর্মী নিয়োগ চলছে সরাসরি যোগাযোগ করুন : 01714218173 email: [email protected]

আজ ১৫ নভেম্বর ভয়াল সিডর দিবস

স্টাফ রিপোর্টার | দৈনিক বিবর্তন.কম
  • নিউজ প্রকাশ: রবিবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৭৬ বার
Barguna sidor
নিউজটি শেয়ার করুন..
  • 2
    Shares

আজ (রবিবার) ১৫ নভেম্বর ভয়াল ‘সিডর’ দিবস। ২০০৭ সালের ওই রাতে শতাব্দীর সবচেয়ে ভয়াল সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস ও ঘূর্ণিঝড় ‘সিডরের’ আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে গিয়েছিল সমগ্র উপকূলীয় অঞ্চল।

ঘূর্ণিঝড়ে শত শত মানুষ, গবাদি পশু ও বন্যপ্রাণীর জীবন প্রদীপ নিভে গিয়েছিলো। নিখোঁজ হয়েছিলো বহু মানুষ। দূর্যোগের আগের দিনও যে জনপদ ছিল মানুষের কোলাহলে মুখরিত, প্রাণচাঞ্চল্য ছিল শিশু কিশোরদের, মাঠজুড়ে ছিল কাঁচা-পাকা সোনালি ধানের সমারোহ। পরের দিনই সেই জনপদ পরিণত হয় মৃত্যুকুপে। ১৩ বছর পর সেই দুঃসহ স্মৃতি নিয়ে এখনো বেঁচে আছেন সেখানকার মানুষ।

তাদের অধিকাংশই হারিয়েছেন স্বজন। এখনো সেই বিভীষিকাময় দিনটির কথা মনে পড়লে আঁতকে ওঠেন তারা। উপকূলের মানুষের স্মৃতিতে এখনো ভেসে ওঠে শত শত মানুষের আত্মচিৎকার আর স্বজনদের আহাজারি। এখনো সন্তানহারা পিতা-মাতা, পিতা-মাতাহারা সন্তানরা এখনো পথের দিকে তাকিয়ে আছে, হয়তো বা তারা ফিরে আবার আসবে এই আশায়।

১৫ নভেম্বর ২০০৭ ভয়াল ওই দিনে বরগুনার তালতলী উপজেলাসহ গোটা দক্ষিনাঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ২১৫ থেকে ২৩০ কিলোমিটার বেগে সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস ও ঘূর্ণিঝড় ‘সিডরের’ তান্ডবে লন্ডভন্ড করে দিয়েছিল সমগ্র উপকূলীয় অঞ্চল। ওইদিন রাত সাড়ে ১০ টার দিকে বঙ্গোপসাগরের সব জল জম দূতের মতো এসে মানুষগুলোকে নাকানি-চুবানী দিয়ে কেড়ে নিতে শুরু করলো। মাত্র ১০ মিনিটের জলোচ্ছ্বাসে উপকূলের কয়েক হাজার মানুষ মৃত্যুর কোলে ঢলে পরলো। সকালে মনে হলো যেন কেয়ামত হয়ে গেছে। চারিদিকে শুধু ধ্বংসলীলা। লাশের পর লাশ পাওয়া যাচ্ছে। কবর দেবার মত কোন জায়গা পাওয়া যাচ্ছিলো না। সেদিন এক একটি কবরে ২/৩ জনের লাশ ফেলে মাটি চাপা দেয়া হয়েছিলো। সেদিন সমগ্র উপকূল ঝুড়ে ছিল শুধু ধ্বংসযজ্ঞ আর লাশের স্তুপ।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, ঘূর্ণিঝড় ‘সিডরের’ আঘাতে বরগুনা জেলায় ১ হাজার ৫০১ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলো। গৃহহীন হয়ে পড়েছিলো ৮৯ হাজার ৭৮৫টি পরিবার।এরমধ্যে আমতলী ও তালতলী উপজেলার ৩৮৬ জন মানুষ সেদিন প্রাণ হারিয়েছিলো।জলোচ্ছ্বাসে দু’উপজেলার ৭০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছিলো।ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলো ১৫৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ। সম্পূর্ন বিধ্বস্ত হয়েছিল ১৩৯ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

সুপার সাইকোন ‘সিডরের’চিহ্ন আজও বয়ে বেড়াচ্ছেন স্বজনরা।

প্রতি বছর ১৫ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় ‘সিডর’ দিবসে স্বজনহারা মানুষরা মিলাদ মাহফিল, দোয়া মোনাজাত, কোরআনখানি ও নানাবিধ ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে দিনটিকে স্মরণ করে থাকে। এছাড়া উপজেলার বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও সেচ্ছাসেবী সংগঠন নিহতদের স্বরন করে মোমবাতি প্রজ্বলন ও শোক সভা করে দিবসটি পালন করেন।


নিউজটি শেয়ার করুন..
  • 2
    Shares
এ জাতীয় আরো সংবাদ..

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন