পিরোজপুরে সাঈদীর জানাজায় মানুষের ঢল
logo
ঢাকা, বুধবার, ১৫ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পিরোজপুরে সাঈদীর জানাজায় মানুষের ঢল

অনলাইন ডেস্ক
আগস্ট ১৬, ২০২৩ ১০:৫৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আমৃত্যু কারাদ-প্রাপ্ত জামায়াত নেতা মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর জানাজা ও দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

গতকাল পিরোজপুর শহরে আল্লামা সাঈদী ফাউন্ডেশন প্রাঙ্গণে দুই দফা জানাজা শেষে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে সেখানকার বায়তুল হামদ জামে মসজিদের পাশে তার দাফন সম্পন্ন হয়। জানাজায় জামায়াত-শিবিরের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী ছাড়াও সাঈদীর হাজার হাজার ভক্ত-অনুরাগী অংশ নেন। এ সময় সাঈদীর বিরুদ্ধে হওয়া মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষী সুখরঞ্জন বালিকেও দেখা যায়। সাঈদীর মৃত্যুর খবর পেয়ে তিনি সাঈদী ফাউন্ডেশনে হাজির হন। এ সময় তিনি গণমাধ্যমের সঙ্গেও কথা বলেন। জানান, সাঈদী ভালো মানুষ ছিলেন। তিনি এমপি থাকা সময় এলাকার সব মানুষ মায়ের পেটে থাকার মতো নিরাপদে ছিলেন।

এদিকে সাঈদীর জানাজাকে কেন্দ্র করে পিরোজপুর শহরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুলসংখ্যক সদস্য সতর্ক অবস্থানে ছিলেন। মোতায়েন করা হয় পুলিশ, র‌্যাব, বিবিজি, আর্মড পুলিশ। এর আগে সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর লাশবাহী এম্বুলেন্স পুলিশি পাহারায় পিরোজপুর শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থিত সাঈদী ফাউন্ডেশন মাঠে পৌঁছায়।

সাঈদীর ছোট ছেলে মাসুদ বিন সাঈদী ঢাকা থেকে পিরোজপুরে পৌঁছাতে দেরি হওয়ায় জানাজা দুপুর সোয়া ১টার দিকে শুরু হয়। জানাজায় ইমামতি করেন জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমির প্রফেসর মুজিবুর রহমান। জানাজার পূর্বে তিনি ও সাঈদীর ছোট ছেলে মাসুদ বিন সাঈদী উপস্থিত জনতার উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন। সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে মুজিবুর রহমান বলেন, এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন নয়। আন্দোলনের মাধ্যমে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই নির্বাচন করতে হবে। তিনি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পিরোজপুর-১ আসনে সাঈদীর ছোট ছেলে মাসুদ সাঈদীকে জামায়াতের প্রার্থী ঘোষণা করে সবার ভোট চান। দুপুর ২টার দিকে সাঈদীর মেজো ছেলে শামীম বিন সাঈদী পিরোজপুরে পৌঁছান।

পিতার অসুস্থতার খবর শুনে তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছিলেন। পরে তার উপস্থিতিতে বেলা ৩টার দিকে দ্বিতীয় দফা জানাজা হয়। এরপর বেলা সাড়ে ৩টায় আল্লামা সাঈদী ফাউন্ডেশন প্রাঙ্গণে অবস্থতি বায়তুল হামদ জামে মসজিদের পাশে জামায়াতে ইসলামীর এ শীর্ষ নেতাকে বড় ছেলে মাওলানা রাফীক বিন সাঈদীর পাশে দাফন করা হয়। এর আগে সোমবার রাত ৮টা ৪০ মিনিটে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। গত রোববার বিকালে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে হৃদ‌রোগে আক্রান্ত সাঈদীকে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে ওই রাতেই তাকে বিএসএমএমইউয়ে নেয়া হয়। সাঈদীর মৃত্যুর খবরে বিএসএমএমইউতে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী ও তার ভক্তরা ভিড় জমায়। এ সময় সাঈদীর জানাজার স্থান নির্ধারণ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। নেতাকর্মীরা ঢাকায় সাঈদীর জানাজা অনুষ্ঠানের দাবি করলেও প্রশাসনের আপত্তিতে সেটি করতে পারেনি পরিবার।

দৈনিক বিবর্তন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।