পিরিয়ডের লক্ষণ বনাম গর্ভাবস্থার লক্ষণ
logo
ঢাকা, বুধবার, ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পিরিয়ডের লক্ষণ বনাম গর্ভাবস্থার লক্ষণ

স্বাস্থ ডেস্ক
ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০২৪ ১০:০৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

পিরিয়ডের লক্ষণ এবং গর্ভাবস্থার লক্ষণগুলির মধ্যে পার্থক্যগুলি অনুসন্ধান করার আগে আসুন মাসিক চক্রের কিছু মৌলিক বিষয়গুলি নিয়ে জানা যাক । একজন মহিলার শরীর প্রতি মাসে একটি জটিল প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যায় যাকে মাসিক চক্র বলা হয়।

যদি একটি নিষিক্ত ডিম্বাণু জরায়ুতে ইমপ্লান্ট না করে, তবে এটি ডিম্বাশয় থেকে একটি ডিম্বাণু নিঃসরণ, জরায়ুর আস্তরণের ঘন হওয়া এবং আস্তরণের ক্ষরণকেও অন্তর্ভুক্ত করে।

গড় মাসিক চক্র 28 দিন, তবে এটি 21 থেকে 35 দিনের মধ্যে পরিবর্তিত হতে পারে। মাসিক চক্রটি তিনটি পর্যায়ে বিভক্ত: ফলিকুলার ফেজ, ডিম্বস্ফোটন ফেজ এবং লুটেল ফেজ। ফলিকুলার ফেজ আপনার পিরিয়ডের প্রথম দিনে শুরু হয় এবং ডিম্বস্ফোটন পর্যন্ত স্থায়ী হয়। ডিম্বস্ফোটন পর্ব হল যখন ডিম্বাশয় একটি ডিম্বাণু বের করে। লুটেল ফেজ হল ডিম্বস্ফোটন এবং আপনার পরবর্তী পিরিয়ড শুরু হওয়ার মধ্যবর্তী সময়।

পিরিয়ড হওয়ার লক্ষণ

বেশিরভাগ মহিলাদের ক্ষেত্রে, পিরিয়ডের লক্ষণগুলি প্রতি 28 দিনে দেখা দেয়, কয়েক দিন দিন বা নিন। লক্ষণগুলি সাধারণত 3-7 দিন স্থায়ী হয় এবং হালকা থেকে গুরুতর পর্যন্ত হতে পারে। পিরিয়ডের সাথে যুক্ত সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে:

ক্র্যাম্পিং: এটি একটি পিরিয়ডের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ। তলপেটে ক্র্যাম্প দেখা দেয় এবং এর তীব্রতা হালকা থেকে গুরুতর পর্যন্ত পরিবর্তিত হতে পারে।

মেজাজের পরিবর্তন: মাসিকের সময় হরমোনের ওঠানামা মেজাজের পরিবর্তন, খিটখিটে, এমনকি বিষণ্নতার কারণ হতে পারে।

ক্লান্তি: অনেক মহিলাই তাদের পিরিয়ডের সময় ক্লান্তি এবং কম শক্তির মাত্রা অনুভব করেন।

মাথাব্যথা: হরমোনের পরিবর্তনে মাসিকের সময় মাথাব্যথা হতে পারে।

ফোলাভাব: অনেক মহিলাই তাদের পিরিয়ডের সময় ফোলাভাব, জল ধরে রাখা এবং পেটে অস্বস্তি অনুভব করেন।

গর্ভাবস্থার প্রাথমিক লক্ষণ 

গর্ভাবস্থার লক্ষণগুলি সাধারণত গর্ভধারণের প্রথম কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ঘটে। কিছু মহিলা গর্ভধারণের প্রথম দিকে এই লক্ষণগুলি অনুভব করতে পারে।

আপনি যদি সন্দেহ করেন যে আপনি গর্ভবতী হতে পারেন, তবে কিছু প্রাথমিক লক্ষণ রয়েছে যা আপনি দেখতে পারেন। এর মধ্যে রয়েছে:

বমি বমি ভাব এবং বমি: সকালের অসুস্থতা গর্ভাবস্থার একটি সাধারণ উপসর্গ এবং দিনের যে কোনো সময় হতে পারে।

ক্লান্তি: ক্লান্তি গর্ভাবস্থার একটি সাধারণ উপসর্গ এবং অনেক মহিলা প্রাথমিক পর্যায়েও ক্লান্ত বোধ করেন।

মিসড পিরিয়ড: পিরিয়ড মিস হওয়া প্রায়ই গর্ভাবস্থার প্রথম লক্ষণ। যাইহোক, এটি সবসময় একটি নির্ভরযোগ্য সূচক নয়, কারণ কিছু মহিলার অনিয়মিত মাসিক হয়।

মেজাজের পরিবর্তন: গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তনের ফলে মেজাজের পরিবর্তন, খিটখিটে, এমনকি বিষণ্নতাও হতে পারে।

কিছু খাবারের প্রতি আকাঙ্ক্ষা বা বিতৃষ্ণা: হরমোনের পরিবর্তন গর্ভাবস্থায় খাবারের লোভ বা ঘৃণার কারণ হতে পারে।

স্তনের কোমলতা: অনেক মহিলাই গর্ভাবস্থায় স্তনের কোমলতা এবং ফোলা অনুভব করেন।

ঘন ঘন প্রস্রাব: জরায়ু প্রসারিত হওয়ার সাথে সাথে এটি মূত্রাশয়ের উপর চাপ দিতে পারে, যার ফলে ঘন ঘন প্রস্রাব হয়।

হরমোনের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে আপনার পরিপাক তন্ত্রটি ধীরে কাজ করে, যার ফলে হজমের সমস্যা হয়। মাসিক বন্ধ হওয়ার আগে এটিই একমাত্র গর্ভাবস্থার লক্ষণ হতে পারে।

গর্ভাবস্থার সম্পূর্ণ চক্রের বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন লক্ষণ দেখা দিতে পারে। মাসিক বন্ধ হওয়ার আগে গর্ভাবস্থার কিছু অস্বাভাবিক লক্ষণ দেখা দিতে পারে যেগুলিকে একজন মহিলা গর্ভাবস্থার প্রাথমিক লক্ষণ হিসাবে নাও ধরতে পারেন।

গর্ভাবস্থার জন্যে কখন পরীক্ষা করবেন?

আসুন বুঝে নিই পরীক্ষা করার সবচেয়ে ভালো সময় কোনটি।

28 দিনের চক্রের মধ্যে 15তম দিনে সাধারণত ওভিউলেশন দেখা যায়। সাধারণ গর্ভাবস্থার ক্ষেত্রে একটি ডিম্বাণু ফ্যালোপিয়ান নালিকাতে নিষিক্ত হয়ে জরায়ুতে যায়, জরায়ুর দেওয়ালে আটকে থাকে। জরায়ুর মধ্যে একটি নিষিক্ত ডিম্বাণু প্রতিস্থাপন হওয়ার সাথে সাথে একজন মহিলার শরীরে তৈরি হওয়া প্লাসেন্টার (বাড়ন্ত ভ্রূণকে পুষ্টি প্রদানকারী টিস্যু) কোষগুলি থেকে এইচসিজি(hCG) নিঃসরণ হতে থাকে। ওভিউলেশনের আটদিন পর থেকেই গর্ভাবস্থার শুরতে এইচসিজির(hCG) নির্দিষ্ট পরিমাণ লক্ষ্য করা যেতে পারে। অর্থাৎ একজন মহিলা মাসিক শুরু হওয়ার অনেক দিন আগে থেকেই নির্দিষ্ট লক্ষণগুলি বুঝতে পারবেন।

কখন পরীক্ষা করতে হবে তা নির্ধারণ করার ক্ষেত্রে সমস্যা হল মাসিক চক্রের প্রথম ভাগটি দ্বিতীয় ভাগের থেকে বেশি অনির্দিষ্ট। মাসিকের প্রথম দিন ও ওভিউলেশনের মধ্যেকার সময়টি প্রতি মাসে আলাদা হতে পারে। ওভিউলেশনের সময়ে যৌন মিলন নিঃসৃত ডিম্বাণুকে শুক্রাণু দ্বারা নিষিক্ত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। এমন কি একটি নিষিক্ত ডিম্বাণু প্রতিস্থাপিত হতে কত সময় নেবে তাও আলাদা আলাদা হয় এবং প্রতিস্থাপনের আগে এইচসিজি(hCG) তৈরি হয় না।

সঠিক ফলাফলের জন্যে আমরা পরামর্শ দিই, যে দিন মাসিক শুরু হওয়ার কথা সেইদিন সকালে মহিলারা পরীক্ষা করুন। এটি ওভিউলেশন, নিষিক্তিকরণ ও প্রতিস্থাপনের সময় দেয়। সকালবেলা পরীক্ষা করা হলে প্রস্রাবের ঘনত্ব বেশি হয় যাতে এইচসিজির(HCG) পরিমাণ বেশি থাকে, যা মাসিকের আগে গর্ভাবস্থার প্রাথমিক লক্ষণগুলি বোঝার জন্যে প্রয়োজন।

দৈনিক বিবর্তন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।