মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদে শিক্ষকের সংবাদ সম্মেলন
logo
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদে শিক্ষকের সংবাদ সম্মেলন

তালতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি
নভেম্বর ১৫, ২০২২ ৫:৩৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বরগুনার তালতলীতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলন ও ভিত্তিহীন মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সুন্দর আলী।

রবিবার(১৩ নভেম্বর) বেলা ১১ টায় তালতলী প্রেসক্লাবে এসে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রতিবাদ করেন ঐ অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক।

সংবাদ সম্মেলন করে অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সুন্দর আলী দাবি করেন গত ১২ নভেম্বর তার প্রতিপক্ষ আবুল কালাম সাংবাদিকদের সাজানো মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিক্তিহীন তথ্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এই সংবাদ সম্মেলনের নিউজ দেশের বিভিন্ন জাতীয় ও অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। এতে তার সম্মানহানী হয়েছে। এর প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন করে তার বক্তব্য তুলে ধরেন। সেখানে তিনি বলেন, গত ২০১৬ সালে উপজেলার ছাতনা পাড়া এলাকার আবুল কালাম ও আমি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পূর্ব পাশে দুইটি খতিয়ানে ৬৭ শতাংশ জমি ক্রয় করি। পরবর্তীতে জমি ভাগ করে আমার জমিতে আমি সীমানা প্রাচীর নির্মাণ শুরু করি । এমন সময় আমার ভাগের জমিতে আবুল কালাম জমি পাবে বলে দাবি করে একাধিকবার শালিক মীমাংসা হয়। এই জমি দিয়ে সড়ক ও জনপদ বিভাগ জমি অধিগ্রহণ করেন। এই বিষয়টি আমরা দুই পক্ষের কেউ জানতাম না। বর্তমান বছরের মাঝামাঝি সময় জানতে পেরে রাস্তার অধিগ্রহণের ট্রেস ম্যাপ উত্তোলন করি। সেখানে দেখা যায় ট্রেস ম্যাপ অনুযায়ী রাস্তা নির্মিত হয়নি। ট্রেস মাপের বাহিরে আমাদের দখলীয় জমির ভিতর দিয়ে দেখানো হলে রাস্তা বাস্তবে ৬৬ ফুট উত্তর দিকে নির্মিত হয়েছে। আমার প্রতিপক্ষ কালামের জমিতে অধিগ্রহণের জমি বেশি পড়ায় কালাম আমার বাড়ির ভিতরের রেকর্ডিও জমি পাওয়ার দাবি করেন। বিষয়টি আমরা উভয়পক্ষ চেয়ারম্যানের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করলেও ট্রেস ম্যাপ যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সংশোধন করে আনার প্রস্তাব করা হয় কালামকে। কিন্তু কালাম প্রস্তাব না মেনে কিছু কুচক্রী মহলের নির্দেশে লোকজন নিয়ে আমার জমিতে ঘরবাড়ি নির্মাণের যাবতীয় সরঞ্জাম নিয়ে আসলে একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়। ঘর তুলতে না পেরে আমার সীমানা প্রাচীরের সাথে ঘরের মালামাল রেখে চলে যায়। পরবর্তীতে ঘর তোলার বিষয়ে লিপ্ত আছে। এ কারণে আমি আমতলী কোর্টের ৭ নভেম্বর একটি মামলা দায়ের করি। এছাড়া আমাদের দলিল অনুযায়ী জমিতে কমতি বা বাড়তি নেই। তবুও কালাম আমার ভাবমূর্তি এবং মান সম্মান খুন্ন করার এবং অহেতুক হয়রানি করার জন্য বিগত ১২ নভেম্বর তারিখে আমতলী কোর্টে জমির সীমানা ভাঙ্গার মিথ্যা মামলা দায়ের করে, যার তদন্তভার বিজ্ঞান আদালত বড় বড় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের কাছে দেন। ইতিমধ্যে আবুল কালাম গং সাংবাদিকদের ভুল তথ্য দিয়ে প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন। এছাড়াও আমার বিরুদ্ধে এন্টি সেন্টিমেন্ট তৈরি করার জন্য সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মিন্টুকে নিয়ে আমি অবান্তর মন্তব্য করেছি এইরকম সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং বানোয়াট তথ্য ছড়ায়।

অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সুন্দর আলী বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে সব লোকের জমি দখল ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এসব কোনো ঘটনাই সত্য না। তাছাড়া আমার বিরুদ্ধে কোথাও কোনো অভিযোগ নেই। আছে বলে কোন প্রমাণও নেই । প্রতিপক্ষ আমাকে হেও প্রতিপন্ন ও সম্মান খুন্ন করার অপচেষ্টা করেছে। তাদের বিরুদ্ধে আমি মানহানি মামলা দায়ের করব আদালতে। তিনি আরও বলেন, এই মিথ্যে তথ্য দেওয়ার সংবাদ যেসব পত্রিকা উঠেছে তা আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে । আমি নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

এবিষয়ে আবুল কালাম বলেন, আমরা কোন ভুল তথ্য দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করিনি যা দিয়েছি সেটা সবই সত্য। সুন্দর আলী গাজী মাস্টার নিজে বাঁচার জন্য এখন উল্টো সংবাদ সম্মেলন করে আমাদের ওপর দায় চাপাচ্ছে। এছাড়া আমরা সীমানা প্রাচীর ভাংচুরের দায়ে আদালতে মামলা দায়ের করেছি।

দৈনিক বিবর্তন এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।